কোভিড-১৯ মোকাবিলায় কেন্দ্রীয় সরকার যে লকডাউনের ঘোষণা করেছিল তা সময়ের সাথে সাথে পরিস্থিতি অনুযায়ী শিথিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রথমে আনলক-১ তারপরে আনলক-২ ঘোষণা করেছিল মোদী সরকার। আগামী শুক্রবার (৩১ জুলাই) আনলক-২’র মেয়াদ শেষ হচ্ছে। আগস্টের এক তারিখ থেকে দেশে শুরু হতে চলেছে আনলক-৩। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক সূত্রে এরকমই ইঙ্গিত মিলেছে।

আনলক-৩ পর্বে বেশ কিছুক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার বিষয়ে ভাবনা চিন্তা করছে সরকার।

যেমন, ১ আগস্ট থেকে সিনেমা হলগুলো খোলা হতে পারে, তবে সে ক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব বিধি সম্পূর্ণভাবে মেনে চলতে হবে হল মালিকদের।

তবে আনলক-৩ পর্বেও দেশের সব স্কুল, মেট্রো রেল পরিষেবা বন্ধ থাকবে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক সূত্রে এরকমটাই জানা গিয়েছে।

কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের (এইচআরডি) স্কুল শিক্ষা দফতরের সচিব অনিতা কারওয়ালের সভাপতিত্বে পুনরায় স্কুল খোলার বিষয়ে রাজ্যগুলির সংশ্লিষ্ট দফতরগুলির সঙ্গে পরামর্শ করা হচ্ছে।

কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের মন্ত্রী রমেশ পখরিয়াল আগেই জানিয়েছিলেন, স্কুল খোলার বিষয়ে অভিভাবকদের পরামর্শ নেওয়া হবে। এরপরই মন্ত্রক সূত্রে জানানো হয়েছে, অভিভাবকরা এই মুহূর্তে স্কুল খোলার পক্ষে নয়।

জানা গিয়েছে, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রকের তরফে ইতিমধ্যেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের কাছে সিনেমা হলগুলি খুলে দেওয়ার বিষয়ে প্রস্তাব রাখা হয়েছে। তার আগে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রকের তরফে হল মালিকদের সঙ্গে আলোচনা চালানো হয়েছে।

সিনেম হল মালিকরা ৫০ শতাংশ আসন ফাঁকা রেখে প্রেক্ষাগৃহ খোলার ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন। সেখানে মন্ত্রকের তরফ থেকে বলা হয়েছে প্রথমে সামাজিক দূরত্ব বিধি বজায় রেখে ৭৫ শতাংশ আসন ফাঁকা রেখে প্রেক্ষাগৃহ খোলা যাবে। পরে ধীরে ধীরে পরিস্থিতি অনুযায়ী ফাঁকা আসনের সংখ্যা কমানো যেতে পারে। সে ক্ষেত্রে স্থানীয় রাজ্য প্রশাসনকে সেখানকার করোনা পরিস্থিতি বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ছাড়পত্র দেওয়া হচ্ছে।

এছাড়াও কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা যাচ্ছে, আনলক-৩ পর্বে জিম খোলার অনুমতিও দেওয়া হবে।